ভোক্তা অধিদপ্তর আয়োজিত সংসদ ভবনের পার্লামেন্ট ক্লাবে দ্রব্য-সামগ্রী নকল প্রতিরোধে ডিজিটাল সফটওয়্যার সল্যুশন শীর্ষক’ এক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

Uncategorized জাতীয়


নিজস্ব প্রতিবেদক ঃ মঙ্গলবার ২২ নভেম্বর জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের আয়োজনে ও লিডস্ করপোরেশন লিমিটেড এর সহযোগিতায় পার্লামেন্ট ক্লাব, জাতীয় সংসদ ভবন, ঢাকায় সকাল সাড়ে ১০টায় ‘দ্রব্য-সামগ্রী নকল প্রতিরোধে ডিজিটাল সফটওয়্যার সল্যুশন শীর্ষক’ এক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।

উক্ত কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এ. এইচ. এম. সফিকুজ্জামান, সভাপতি হিসেবে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের পরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে লিডস্ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শেখ আবদুল ওয়াহেদ উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের প্রধান কার্যালয়ের উপ-পরিচালক ও সহকারী পরিচালকবৃন্দ, লিডস্ কর্পোরেশনের লিমিটেডের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ, ভোগ্যপণ্য উৎপাদন ও আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান Unilever Bangladesh Ltd, Square Pharma, Reckitt Benckiser PLC, Remark HB Ltd, Bashundhara Group, Walton Group, Esquire Electronics, Rangs Electronics, Singer BD Ltd, Best Electronics Ltd এর প্রতিনিধিবৃন্দ। অনলাইনে যুক্ত হয়ে সফটওয়্যারের বিভিন্ন বৈশিষ্ট্য বর্ণনা করেন Mr. Dz Hamal. সভাপতির স্বাগত বক্তব্যের মাধ্যমে কর্মশালার কার্যক্রম শুরু হয়।

কর্মশালায় নকল পণ্য উৎপাদন ও বিক্রয় প্রতিরোধ, মোড়কজাত বিধিমালা অনুযায়ী পণ্যের গায়ে এমআরপিসহ অন্যান্য তথ্য প্রদান এবং আমদানিকৃত পণ্যের গায়ে আমদানিকারকের তথ্য প্রদানের বিষয়ে আলোচনা হয়।

আলোচনায় উঠে আসে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠানের পণ্য বিশেষ করে ঔষধ, কসমেটিকস পণ্য, শিশু খাদ্য এবং ইলেকট্রনিক পণ্য নকল করে বিক্রয় করছে।

দ্রব্য-সামগ্রী নকল প্রতিরোধে ‘ডিজিটাল সফটওয়্যার
সল্যুশন’ শীর্ষক সফটওয়্যারটি কিভাবে সহায়ক হবে সে বিষয়ে লিডস্ করপোরেশন একটি পাওয়ারপয়েন্ট প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করেন। লিডস্ করপোরেশনের কর্মকর্তাগণ সফটওয়্যার সম্পর্কে অংশগ্রহণকারীদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক উল্লেখ করেন ভোক্তা-স্বার্থ সংরক্ষণের পাশাপাশি ব্যবসায়ীদের স্বার্থ সংরক্ষণেও কাজ করে অধিদপ্তর।

তিনি পণ্যসামগ্রী ক্রয়-বিক্রয়ে ভোক্তা ও ব্যবসায়ীদের আস্থার সংকট কাটাতে এ ধরণের উদ্যোগ সহায়ক হবে মর্মে অভিমত ব্যক্ত করেন।

তিনি নকল পণ্য উৎপাদন ও বিক্রয় প্রতিরোধের বিষয়ে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দিক নির্দেশনা প্রদান করেন। একইসাথে তিনি কোম্পানির পণ্য যেন নকল করা না হয় সে বিষয়ে কোম্পানিগুলোকে সতর্ক ও সচেতন হওয়ার আহবান জানান।
সবশেষে মহাপরিচালক ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণে সকলে সমন্বিত ভাবে কাজ করবেন এই আশাবাদ ব্যক্ত করেন।


Leave a Reply

Your email address will not be published.