কারাকোরাম হাইওয়ে; পৃথিবীর সবচেয়ে উঁচু এবং বিপজ্জনক রাস্তা

Uncategorized আন্তর্জাতিক



আজকের দেশ ডেস্ক ঃ কারাকোরাম হাইওয়ে; পৃথিবীর সবচেয়ে উঁচু এবং বিপজ্জনক রাস্তা। পাকিস্তান ও চীনকে সড়কপথে সংযুক্ত করেছে এই রাস্তা। প্রাচীন সিল্করোডের যে পথের মাধ্যমে ভারতীয় উপমহাদেশের সাথে চীনের বাণিজ্য চলতো, সেই পথ ধরেই চলে গেছে কারাকোরাম মহাসড়ক, পাহাড় কেটে পথ করে নিয়েছে অ্যাসফল্টের রাস্তা। ১,৩০০ কি.মি. মহাসড়কের ৮৮৭ কি.মি. পড়েছে পাকিস্তানে, বাকি ৪১৩ কি.মি. চীনে। চীনের স্বায়ত্তশাসিত এলাকা জিনজিয়াংয়ের পশ্চিম অংশ ও পাকিস্তানের উত্তরাঞ্চলের মাঝে সড়ক যোগাযোগ প্রতিষ্ঠা করেছে এই রাজপথ। প্রাচীন কাশগড় শহরের সাথে মিলেছে পাকিস্তানের ঝকঝকে রাজধানী ইসলামাবাদ। ইসলামাবাদ থেকে ৫০ কি.মি. দূরে, পাঞ্জাব প্রদেশের হাসান আব্দাল শহর থেকে যাত্রা শুরু কারাকোরাম হাইওয়ের। পাকিস্তান অংশে হরিপুর, অ্যাবোটাবাদ, গিলগিট, হুনজা, সোস্ত প্রভৃতি শহরের মাঝে দিয়ে এগিয়ে গেছে খুনজিরাব পাস পর্যন্ত। তারপর চীন সীমান্ত পেরিয়ে তাশগুর্কান শহর ছাড়িয়ে কাশগড়ে গিয়ে শেষ হয়েছে হাইওয়েটি। এই মহাসড়কের নির্মাণকাজ শুরু হয় ১৯৬৬ সালের দিকে। প্রায় ২১ বছর পর কয়েক হাজার টন ডিনামাইট আর বিপুল পরিমাণ অর্থ খরচের মাধ্যমে ১৯৭৯ সালে শেষ হয় রাস্তা বানানোর কাজ। যান চলাচলের জন্য খুলে দেয়া হয় আরো পরে,১৯৮৬ সালে।হিমালয়,কারাকোরাম, হিন্দুকুশ,পৃথিবীর অন্যতম বৃহৎ ও ভয়ঙ্কর তিনটি পর্বতমালার কোলঘেঁষে অবস্থান কারাকোরাম হাইওয়ের। এই মহাসড়কের বেশিরভাগ অংশ ৩,৫০০ মিটার উচ্চতায় অবস্থিত। এই অবিশ্বাস্য উচ্চতায়, তীব্র বিপদসঙ্কুল অঞ্চলে এত দীর্ঘ হাইওয়ে বানানো খুবই দুরুহ কাজ ছিল।
ভূমিধস, পাথরধস, বন্যা, তুষারপাত, হিমাবাহের ধেয়ে আসা- নানারকম প্রাকৃতিক দুর্যোগে বার বারই বিঘ্নিত হয়েছে নির্মাণকাজ। জীবন দিতে হয়েছে প্রায় এক হাজারের মতো শ্রমিককে। এত বাধাবিপত্তি পাড়ি দিয়ে পাকিস্তান ও চীন এই যৌথ উদ্যোগকে চলমান রেখে অসম সাহস আর ধৈর্য্যের পরিচয় দিয়েছে। পাকিস্তান আর্মির ইঞ্জিনিয়ারিং কর্পস আর চীনা প্রকৌশলীদের অদম্য তেজ, রাস্তা নির্মাণকারী ২৪,০০০ শ্রমিকের হাড়ভাঙা পরিশ্রম বিশাল হাইওয়েটির বাস্তবে রুপদানের মতো দুঃসাধ্য কাজ সম্ভব করেছে। বিশ শতকের মাঝামাঝিতে মহীরুহ স্থাপনার সফল নির্মাণের পেছনে অবদান রাখা প্রযুক্তির প্রশংসাও করতে হয়। গত শতাব্দীর সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের বিস্ময় এই মহাসড়ক। পৃথিবীর একদম ছাদে, ভয়াবহ উচ্চতায় এত দীর্ঘ একটি রাজপথের কষ্টসাধ্য নির্মাণ একে ভূষিত করেছে পৃথিবীর ‘অষ্টম আশ্চর্য’ অভিধায়।অর্থনৈতিক সম্পর্ক বৃদ্ধির লক্ষ্যে পাকিস্তান-চীন সীমান্তে একটি সড়ক নির্মাণের কথা প্রথম মাথায় আসে চীনা জেনারেল জেং বিয়াও-এর। ১৯৫৬-৫৮ সালে পাকিস্তানে চীনের রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব পালন করেন এই ভদ্রলোক। কয়েক বছর ধরে চেষ্টা করে বেইজিংকে রাজি করেন হাইওয়ে নির্মাণে বিশাল পরিমাণ অর্থ ঢালতে। সত্যি বলতে, চীনের লাভ এত বেশি ছিল যে এতে রাজি না হয়ে উপায় ছিল না। কারণ রাস্তাটি সবচেয়ে সংক্ষিপ্ত পথে চীনকে আরব সাগরে পৌঁছে দিতে পারে, পাকিস্তানের সমুদ্রবন্দর গাওয়াদারের সাথে সড়ক যোগাযোগ নিশ্চিত করার মাধ্যমে। চীন-পাকিস্তান ইকোনমিক করিডোর প্রকল্পের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অংশ এই সড়ক। সড়কটি শুধু পাকিস্তান ও চীনকে সংযুক্ত করেনি, দক্ষিণ এশিয়ার সাথে মধ্য এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য, এমনকি ইউরেশিয়া অঞ্চলের বাণিজ্যের পথ খুলে দিয়েছে। আশেপাশের পাহাড়ে বিচ্ছিন্নভাবে বাস করা তাজিক, উইঘুর, কিরঘিজ জাতির লোকজনকে সমাজের মূল স্রোতধারায় সংযুক্ত করেছে এই সড়ক। পাকিস্তানের দূরবর্তী এলাকা গিলগিট-বালটিস্তানকে সম্পৃক্ত করেছে পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ বাণিজ্যে। তবে কারাকোরাম হাইওয়ে এখন পর্যটন আকর্ষণ হিসেবেই বেশি জনপ্রিয়।পাহাড়ের গভীরে এই রাজপথ ধরে ছুটে চলা মানে হাতে হাত রাখা বিপদের, উপভোগ করা রোমাঞ্চের স্বাদ আর প্রাণ ভরে টেনে নেয়া মুক্তির সুবাতাস। আপনার রক্তে যদি থাকে রোমাঞ্চের নেশা আর বিপদকে আলিঙ্গন করার দুঃসাহস, তাহলে কারাকোরাম আপনার জন্য। প্রাচীন সিল্করোডের এই পথ ধরে চলতে গিয়ে আপনি পা রাখবেন হাজার বছর আগের পথিক, বণিক, পর্যটক, অভিযাত্রী, বিশ্ববিজয়ী বীর, দুধর্ষ খুনি বা ডাকাতদলের রেখে যাওয়া পায়ের ছাপে। আঁকাবাঁকা পথ ছাড়িয়ে চোখে পড়বে পথের দু’পাশের ভয়াবহ উচ্চতার দুর্গম পর্বতশৃঙ্গ, অসংখ্য হিমবাহ আর নয়নাভিরাম কাশ্মীরের শ্বাসরুদ্ধকর সুন্দর উপত্যকাগুলো। কারাকোরামে ভ্রমণ করার সময় সাক্ষাৎ ঘটবে বিচিত্র জাতিগোষ্ঠীর লোকজনের সাথে। পাকিস্তানের পাঞ্জাবে পাঞ্জাবি, হুনজাতে ইসলামইলি শিয়া, তাশগুর্কানে তাজিক, জিনজিয়াং-এ উইঘুর। এ যেন একসাথে ছোটখাট কয়েকটা দেশ ভ্রমণ করার মতো।কারাকোরাম হাইওয়ে ভ্রমণের সময় আবহাওয়া যদি শান্ত থাকে, তারপরও পড়তে হবে অসংখ্য চ্যালেঞ্জের মুখে। দেখা যাবে, প্রশস্ত রাজপথ হঠাৎই সরু হয়ে গেছে, আচমকা তীক্ষ্ম বাঁক নিয়েছে, বিশাল পাথরের নিচে দিয়ে চলে গেছে রাস্তা, উপরে তাকালেই গা শিউরে উঠবে। সাথে অবধারিতভাবে থাকছে অসংখ্য প্রাকৃতিক দুর্যোগের দৈব আবির্ভাব! অ্যাসফল্টের রাস্তায় যাত্রা সাধারণত মসৃণ, তবে হিমবাহ, ভারী বর্ষণ বা বন্যা, তুষারপাত এবং ভূমিধসে মাঝে মাঝেই রাস্তাঘাট আর ব্রীজগুলো চাপা পড়ে যায়। জুলাই বা আগস্টে এসব ঘটনা বেশি ঘটে। বসন্ত বা গ্রীষ্ম কারোকোরাম ভ্রমণের শ্রেষ্ঠ সময়। যদি নিজে গাড়ি চালিয়ে যেতে চান, তাহলে কারাকোরাম পরীক্ষা নেবে আপনার গাড়ির সহ্যক্ষমতা, আপনার ড্রাইভিং দক্ষতা, আপনার শক্তি আর নার্ভের। সাধারণ জিপের কথা ভুলেও মাথায় আনবেন না, ফোর হুইল ড্রাইভ এক্ষেত্রে আদর্শ বাহন। তবে বেশিরভাগ ভ্রমণকারী সাধারণত বাসে চলাচল করেন। পাকিস্তানের রাজধানী ইসলামাবাদ বা কারাকোরাম হাইওয়ে সংলগ্ন যেকোনো শহর থেকে বাসে চড়া যায়।


Leave a Reply

Your email address will not be published.